‘আমাকে ফুলের তোড়া দিয়ে বিদায় দেওয়ার প্রয়োজন নেই’

ভোরের টেকনাফ ডেস্ক::

রংপুর রেঞ্জার্সের বিপক্ষে ব্যাটে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন ফর্মে ফেরার। আগামী মাসেই বাংলাদেশ সফরে আসার সম্ভাবনা রয়েছে জিম্বাবুয়ের। যেখানে টেস্ট, টি-টোয়েন্টির সঙ্গে রয়েছে ওয়ানডে সিরিজও।

এখনও মাশরাফি বিন মুর্তজা অবসর নেননি ওয়ানডে ফরম্যাট থেকে। তাই এই সিরিজে নিশ্চিতভাবে জিম্বাবুয়ের সিরিজে দলের নেতৃত্ব দেবেন তিনিই।যদিও খারাপ সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে মাশরাফির ক্যারিয়ার। বিশ্বকাপে নয় ম্যাচে ১ উইকেট পাওয়া মাশরাফি আসন্ন সিরিজের দলে থাকা না থাকার বিষয়টা পুরোপুরি তুলে দিয়েছেন নির্বাচকদের কাঁধে।‘এখন সিলেকশনের তো একটা ব্যাপার আছে। বিশ্বকাপে ৯ ম্যাচে ১ উইকেট নেবার পর আমি নিজেকে জাতীয় দলে দেখছি না। সত্যি বলতে নির্বাচকরা যদি সুযোগ দেয় আমি বলবো, আমি আমার সর্ব্বোচ্চ চেষ্টা করবো। বাজে খেলার পর কিভাবে বলবো যে, আমি জাতীয় দলে সুযোগ পাব। আমার জায়গাতে অন্য কেউ হলে আরও আগে বাদ পড়তো।’এরপরই ঘুরেফিরে অবসর নিয়ে প্রশ্ন। চলতি বিপিএলে যে কদিন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছেন, প্রায় দিনই প্রশ্ন শুনতে হয়েছে, অবসর নিয়ে।তবে এদিনের প্রশ্নটা ছিল, মাঠ থেকে অবসর নেবেন নাকি অভিমান করে না খেলেই অবসরে যাবেন।‘অভিমান আমার কাছ মনে হয় না। আমি অভিমান নিয়ে চলিও না, ভাবিও না। অবসরের কথা বলতে আমার জায়গা থেকে আপনি বলতেই পারেন, সবাই করিয়ে দিয়েছে। আমি নিজেও সে জায়গাতে অবস্থান করছি। আমি যেটা খেলছি, সেখানেই উপভোগ করছি, মাঠ থেকে অবসর নেবো কিংবা নেবো না সেটা নিয়ে চিন্তা করিনি।’মাঠ থেকে অবসর নেয়ার ব্যপারে মাশরাফি বলেন, সামনে ঢাকা লীগ। উপভোগ করবো, খেলবো। সবসময় জাতীয় দলে খেলতে হবে, জাতীয় দলে না খেললে আপনি খেলোয়াড় না এমন তো না। নিজেকে আমার এতো প্রাধান্য দেবার দরকার আছে তেমন না, আমি দেইও না যে আমাকে সবাই মাঠে থেকে বিদায় দিবে, আমাকে ফুলের তোড়া দিয়ে সবাই শুভেচ্ছা জানাবে। কোনো প্রয়োজন নেই। আমি যেরকম আছি, ভালো আছি। খেলাটা উপভোগ করছি।
📕সংবাদটি লাইক এবং শেয়ার করুন।

শেয়ার করুন !

Daily Vorer Teknaf

সুন্দর আগামী বিনিমার্ণে একটি অঙ্গীকারবদ্ধ সংবাদ মাধ্যম। দৈনিক ভোরের টেকনাফ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *