মেজর সিনহা হত্যা, ঘটনাস্থলেই সিনহার বড় বোনের প্রতিবাদ

শাহেদ মিজান::
দেশের এই সময়ের সব চেয়ে আলোচিত-সমালোচিত ঘটনা সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাবেক দেহরক্ষী চৌকস এই অবসরপ্রাপ্ত এই সেনা কর্মকর্তাকে খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। গত ৩১ জুলাই টেকনাফের বাহারছড়া পুলিশ চেকপোস্টে পুলিশের পরিদর্শক লিয়াকত তাকে বুকে চারটি গুলি করে হত্যা করেছিলেন। পরে মৃত অবস্থায় বরখাস্ত ওসি প্রদীপও আরো দুটি গুলি করে।
কিন্তু চরম আক্রমণ আচ করতে পেরেছিলেন চৌকস সিনহা। তাই পুলিশ তার গাড়ি দাঁড় করানোর সাথে সাথে তিনি ‘কাম ডাউন’ বলে দু’হাত তুলে নিজে নত স্বীকার করেছিলেন। কিন্তু তারপরও নিষ্ঠুর লিয়াকতের মনে দয়া আসেনি। মুহূর্তেই পরপর চারটি গুলি করে সিনহাকে নিমর্মভাবে হত্যা করেন।

এই ঘটনা দেড় মাস পেরিয়ে গেছে। একমাত্র ভাইয়ের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বড়বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস। এই ওসি প্রদীপ, লিয়াকতসহ ১৪জন কারাগারে রয়েছে। ভাইয়ের এমন মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না বোন শারমিন। তিনি বিচারের জন্য দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন; চালিয়ে যাচ্ছেন প্রতিবাদ।
এবার নিজেই ঘটনাস্থলে বুকে ‘কাম ডাউন’ প্লেকার্ড ঝুলিয়ে ভাই হত্যার অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছেন। চেয়েছেন দোষীদের কঠিন বিচার।
শারমিন শাররিয়ার ফেরদৌসের এই অভিনব প্রতিবাদের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

জানা গেছে, মেজর সিনহা গাড়ী থেকে নামার আদেশ পেয়ে দুই হাত উপরে তুলে পিস্তল তাক করা লিয়াকতের উদ্দ্যশ্যে ‘কামডাউন’ উচ্চারণ করে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে নামার সময়ই পর পর চারটা গুলি করে হত্যা করা হয় সিনহাকে। সাক্ষীদের নিকট থেকে জানার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে বোনের এ অভিনব প্রতিবাদ দেশবাসীর দৃষ্টি আকর্ষন করেছে ব্যাপকভাবে।

শেয়ার করুন !

Daily Vorer Teknaf

সুন্দর আগামী বিনিমার্ণ বাস্তবায়নে এটি একটি অঙ্গীকারবদ্ধ অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। 'দৈনিক ভোরের টেকনাফ' সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য প্রিয় পাঠকদের প্রতি অনুরোধ করা হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *