হযরত আল্লামা শাহ আহমদ শফী (রহঃ) মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করলেন আবদুল্লাহ চিশতী

মহান আল্লাহ আল্লামা শফি হুজুরকে জান্নাতুল ফেরদৌসে স্থান দিন। যতদিন বেঁচে ছিলেন ততদিন তিনি ইসলামের কল্যাণে নিজেকে উৎসর্গ করে গিয়েছেন। ইসলাম বিরোধীতা, নাস্তিকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার থেকেছেন আমৃত্যু তাঁর সংগঠন হেফাজতে ইসলামকে নিয়ে। উনি হাটহাজারী তথা চট্টগ্রামের বাসিন্দাদের ইসলামের কাণ্ডারী হিসাবে বাংলাদেশসহ পুরো বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

শাহবাগ চত্বরকে ঘিরে যখন নাস্তিকদের তাণ্ডবলীলা চলছিল, রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতায় আল্লাহ-রাসুলের বিরুদ্ধেও বিষোদগার ছড়াচ্ছিল সামাজিক গণমাধ্যমে এই নাস্তিকরা, তখন আল্লামা শফি হুজুরের নেতৃত্বে হেফাজতে ইসলাম তাদের বিরুদ্ধে প্রবল শক্তিশালী অবস্থান নেয়। ধার্মিক মুসলমানদের বর্ম হিসাবে আবির্ভূত হয় আল্লামা শফি হুজুরের নেতৃত্বে হেফাজতে ইসলাম। তাদের এই অবস্থান নেয়াতে ইসলামবিরোধী সরকারও বাধ্য হয় নাস্তিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে।

আল্লামা শফি হুজুরের নেতৃত্বে জাতীয়ভাবে হেফাজতে ইসলাম একটা মজবুত অবস্থান তৈরি করে, যা অদ্যাবধি অটুট আছে। শফি হুজুর তাঁর জীবদ্দশায় হেফাজতে ইসলামকে দেশের সরকার এবং বিরোধী দলের কাছে গ্রহণযোগ্য শক্তিশালী ইসলামিক শক্তি হিসাবে প্রতিষ্ঠা করে গিয়েছেন। বিদেশীদের কাছেও হেফাজতের গ্রহণযোগ্যতা সর্বজনবিদিত।

শফি হুজুর, হেফাজত ইসলামের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধির সাথে সাথে হাটহাজারী মাদ্রাসা তথা হাটাহাজারীর নামও পুরো বাংলাদেশের ইসলাম প্রেমীদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তাই হাটহাজারীর মানুষ শফি হুজুরের কাছে সবসময়ই কৃতজ্ঞ থাকবে।

মোঃআবদুল্লাহ চিশতী

সভাপতি

আওয়ামী সাংস্কৃতিক লীগ

চট্টগ্রাম মহানগর

সম্পাদক

আমার চট্টগ্রাম 24.কম 

শেয়ার করুন !

Daily Vorer Teknaf

সুন্দর আগামী বিনিমার্ণ বাস্তবায়নে এটি একটি অঙ্গীকারবদ্ধ অনলাইন সংবাদ মাধ্যম। 'দৈনিক ভোরের টেকনাফ' সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য প্রিয় পাঠকদের প্রতি অনুরোধ করা হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *